সুপার সিঙ্গার সিজন তিনে চাঁদের হাট

সুপার সিঙ্গার সিজন তিনে চাঁদের হাট

বৈঠকখানা ডেস্কঃ গত দুটি সিজনের চরম সাফল্যের পর ফের শুরু হল স্টার জলসার জনপ্রিয় গানের রিয়্যালিটি শো ‘সুপার সিঙ্গার’ সিজন ৩। এই শোতে রয়েছে একের পর এক চমক। বিচারক হিসাবে প্রথমবার এই শোয়ের মঞ্চে দেখা গেল সোনু নিগমকে। সঙ্গে রয়েছেন কুমার শানু ও কৌশিকী চক্রবর্তী। এই রিয়্যালিটি শোয়ের সঞ্চালনার দায়িত্বে রয়েছেন যিশু সেনগুপ্ত।

এছাড়াও সুপার সিঙ্গার ‘সুপার সিঙ্গার’ সিজন ৩-এর মঞ্চে প্রতিযোগীদের গ্রুমিং করার জন্য রয়েছেন মিউজিক অ্যারেঞ্জার শোভন গাঙ্গুলী, সিনিয়র গ্রুমার অয়ন ব্যানার্জি, গ্রুমার রাজীব দাস, দীপান্বিতা চৌধুরী ও সুজয় ভৌমিক। প্রতিযোগীরা পুরোপুরি তৈরি হয়ে তবেই মঞ্চে এসেছে আর এই মঞ্চ থেকেই জন্ম নেবে আগামী দিনের সুপারস্টার।

দেশজুড়ে ৩২ জন প্রতিযোগিকে বেছে নেওয়া হয়েছে এই রিয়্যালিটি শো-এর জন্য। এবারের সিজনে অংশ নেওয়ার জন্য প্রতিযোগীদের কোনও বয়সের ঊর্ধ্বসীমা ছিল না। তবে ন্যূনতম বয়সসীমা ছিল ১৮ বছর। অনলাইনে অডিশনে বাছাই করে প্রতিযোগি নেওয়া হয়েছে। তিনটি ধাপের মাধ্যমে ২৪ জনকে নিয়ে শুরু হয়েছে রিয়্যালিটি শো-এর মূল প্রতিযোগিতা।   

সুপার সিঙ্গার-এর এই মঞ্চ থেকেই তৈরি হবে আগামী দিনের সুপারস্টার, যার গানেই হবে বাংলার জয়। কারণ এই শোয়ের মাধ্যমে নতুন প্রতিভারা নিজেদের ট্যালেন্ট দেখানোর সুযোগ পাচ্ছেন।

করোনা পরিস্থিতিতে অডিশন নেওয়ার পর বাছাই পর্বটা ছিল সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জিং। কারণ কোভিডসুরক্ষা এবং বিধিনিষেধ বজায় রাখতে সম্পূর্ণ বাছাই পর্বটি নির্দিষ্ট দিনে নির্দিষ্ট পেজ থেকে অনলাইনে চলেছে। অন্যান্য বারের মতো দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতিযোগীরা এসেছেন। কলকাতা থেকে শুরু করে ত্রিপুরা, বোম্বে,দিল্লি, জম্মু ও কাশ্মীর-সহ সব জায়গার প্রতিযোগীরাই রয়েছেন। প্রথম দু’টি এপিসোডে ফাইনাল অডিশন তার পরই শুরু হবে আসল অনুষ্ঠান।

বিচারক কুমার শানুর কথায়, ‘ছোটবেলায় অনেক অভাব দেখেছি। আমার মনে হয়ে পরিবার এবং বড় হওয়ার পরিবেশের উপর এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে। আমার বাব-মায়ের থেকেই শিক্ষা পেয়েছি। সারা জীবন বাঙালি হয়েই থাকতে চাই আমি’।

কৌশিকীর কথায়, এত গুণী প্রতিযোগীরা আসছেন যে, ‘আমরা বুঝতে পারছি না কাকে ছেড়ে কাকে নেব। সকলকে তো নেওয়া সম্ভব না। প্রতিবার মনে হচ্ছে, এবারে যে আসবে সে একটু খারাপ গান করুক, যাতে আমরা বাদ দিতে পারি’।

অন্যদিকে চ্যানেল মুখপাত্র জানান, ‘বাংলা প্রতিভার হটস্পট। এটি সর্বদা প্রতিটি ক্ষেত্রে তার শ্রেষ্ঠত্ব দেখিয়েছে। সুপার সিঙ্গার সর্বদা রাজ্যের প্রতিটি কোণ এবং কোণ থেকে লুকানো বিস্ময় বের করে আনে এবং তাদের প্রতিভা প্রদর্শন করে। এই বছর আগের ২ টি মরসুমের অসাধারণ সাফল্যের পর আমরা সারা ভারত থেকে প্রতিভা নিয়ে আসছি। অনুষ্ঠানটি একটি বিশাল উৎসবের প্রতিশ্রুতি দেয় এবং আমরা নিশ্চিত যে দর্শকরা এই শোয়ের নতুন মরসুমটি পছন্দ করবেন।

administrator

Related Articles